যশোর অভয়নগরে মরণ নেশার কবলে যুব সমাজ পুলিশ প্রশাসন নীরব

কামাল হোসেন, যশোর জেলা প্রতিনিধিকামাল হোসেন, যশোর জেলা প্রতিনিধি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৪৩ পিএম, ১৩ জানুয়ারি ২০২২


যশোর অভয়নগরে পৌর সভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে,বিভিন্ন গ্রামে আবারো নতুন করে খুলতে শুরু করেছে মাদকের বাজার।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এ সমস্ত মাদকের মধ্যে রয়েছে বাংলা মদ, গাঁজা, ইয়াবা, ফেনসিডিলসহ ইন্ডিয়ান নামী দামী ব্র্যান্ডের আরো অনেকনাম না জানা মাদক। আর এ সমস্ত মরণ নেশা মাদকের কবলে পড়ে ধবংস হতে চলেছে এলাকার যুব সমাজ । যুব সমাজে নেমে এসেছে নৈতিক অবক্ষয়।

অনেক মাদক সেবীরা মাদকের টাকা সংগ্রহ করতে না পেরে লিপ্ত হতে চলেছে চুরি,ডাকাতির মত বিভিন্ন অপরাধ মুলক কাজে। এতে করে বাড়তে শুরু করেছে নানা অপরাধ প্রবনতা। মাদকের টাকার জন্য অনেকেই আবার মা বাবার সাথে করছে অমানবিক ব্যবহার।কেহ কেহ আবার মা বাবাকে করছে শারীরিক ও মানসিক ভাবে লাঞ্চিত। লোক লজ্জার ভয়ে অনেক মা বাবাই নীরবে সহ্য করে যাচ্ছে মাদকসেবী সন্তানের এমন অমানবিক অত্যাচার নির্যাতন।

অভয়নগরে উল্লেখ যোগ্য যে সমস্ত ওয়ার্ড, ইউনিয়নে মাদকের বাজার গড়ে উঠেছে সে অঞ্চল হলো- সিদ্দিপাশা,গোপীনাথপুর,সিংগাড়ি, শংকরপাশা,বাঘুটিয়া, মথুরাপুর, হরিশপুর, দেয়াপাড়া,১নং ওয়ার্ড, ও ২নং ওয়ার্ড, বনগ্রাম,সুন্দলী, চেংগুটিয়া, নওয়াপাড়া, প্রফেসারপাড়া, ড্রাইভার পাড়া,ধোপাদি, রাজঘাট, গাজীপুরসহ বিভিন্ন গ্রাম -গঞ্জে এখন বখাটে যুবকেরা মাদক সেবনে আসক্ত হয়ে পড়েছে। এসব এলাকার মধ্যে সব থেকে দুটি এলাকায় ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে, ভৈরব সেতুর উপরে, সেতুর আশ-পাশে,এবং নওয়াপাড়া (৪নং ওয়ার্ড) ড্রাইভারপাড়া এলাকা।

এসব এলাকায় সন্ধ্যার পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত দেখা যায়, বখাটে যুবকদের আনাগোনা। মাদকদ্রব্য নিয়ে চলাচল করলেও পুলিশের তেমন কোন পদক্ষেপ দেখা যায়না। যে কারনে দেদারছে মাদক ব্যবসায়ীরা মাদক বিক্রি ও সেবন করে চলেছে। এর মধ্যে অনৈতিক কর্মকান্ড দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিভিন্ন এলাকার চিহ্নিত মাদক ব‍্যবসায়ীরা অভিনব কায়দায় ও লোক বল দিয়ে বিভিন্ন অঞ্চলে মাদকের আখড়া গড়ে তুলেছে অথচ মাদক সম্রাটরা থেকে যাচ্ছে প্রশাসনের ধরা ছোঁয়ার বাইরে অর্থ‍্যাৎ তুলসী ধোঁয়া। এর নারী -নক্ষত্রের খবরাখবর পুলিশ প্রশাসন সবই জানেন, অথচ কেনযে নীরব ভূমিকা পালন করছেন তা বোধগম্য নয়।

মাদক নিয়ন্ত্রনে থানা পুলিশের কি ভুমিকা রয়েছে জানতে চাইলে,অভয়নগর থানার পুলিশ পরিদর্শক একে শামীম হাসান জানান , জনগণের সাথে মিশে সহজে খোঁজ খবর নেয়ার উদ্দেশ্যেই বিট পুলিশিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মাদক নিয়ন্ত্রনে পুলিশ সব সময় তৎপর রয়েছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।

আপনার মতামত লিখুন :